আওয়ামী-জামায়াত হবে, বিএনপি-জামায়াত আর হবে না: টুকু

75

যুদ্ধাপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল হলেও দলটিকে বেআইনি ঘোষণা না করার পেছনে তাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের গোপন সম্পর্ক কাজ করছে কি না, সেই প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ (টুকু)।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রাজধানীর হাজারীবাগ এলাকার সিকদার রিয়েল এস্টেট–সংলগ্ন একটি মাঠে এক প্রতিবাদ সমাবেশে ইকবাল হাসান মাহমুদ এ কথা বলেন।

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আওয়ামী লীগের মুখে প্রায়ই শুনি, যেটা বুলি হয়ে গেছে। তারা প্রায়ই বলে, বিএনপি-জামায়াত, বিএনপি-জামায়াত। আমি বলছি, এখন সময় এসেছে আওয়ামী-জামায়াত, আওয়ামী–জামায়াত বলার। জামায়াতও উর্দু, আওয়ামী লীগও উর্দু—দুটো একসঙ্গে মিলবে ভালো। কেননা, ওনারা (আওয়ামী লীগ) জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল করে, কিন্তু বেআইনি ঘোষণা করে না। তাহলে কি আমি বলব, ওনাদের পরকীয়া প্রেম চলছে!’

জামায়াত যুদ্ধাপরাধী দল—এ কথা স্বীকার করে ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘আপনারা বলেন যুদ্ধাপরাধী দল। আমি অস্বীকার করি না, কিন্তু নিবন্ধন বাতিল করলেন, বেআইনি ঘোষণা করলেন না। তার অর্থ আওয়ামী লীগ জামায়াতের সঙ্গে তলেতলে বন্ধুত্ব করছে, তার জন্য বাতিল করে না। তাই আজ থেকে আওয়ামী-জামায়াত হবে, বিএনপি-জামায়াত আর হবে না।’

সমাবেশের অনুমতি নিয়ে পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকার সমালোচনা করেন ইকবাল হাসান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘রাতে শুনলাম, আমরা ধানমন্ডিতে বাংলাদেশে মেডিকেল কলেজের সামনে মিটিং করব। ঘণ্টা দুই পর শুনলাম এই জায়গা বাতিল করেছে। তারপর রাত থেকে এখানে না ওখানে, ওখানে না ওইখানে, হায় রে আমার বাংলাদেশ! বাংলাদেশে নাকি গণতন্ত্র আছে। ওসি অনুমতি দিলে আমরা মিটিং করতে পারব, ওসি অনুমতি না দিলে মিটিং করতে পারব না।’

সরকারের সমালোচনা করে ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘আজ গণতন্ত্র তোমরা লুট করে নিয়েছ। আমরা কিছু বললে বলে পাকিস্তানের দালাল। আরে আপনারা অন্যায় যেটা করছেন, আমরা তো পাকিস্তান আমলে রাজনীতি করেছি। আমাদের ওসির কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে মিটিং করতে হয়নি। সুতরাং আপনারা তাদের চেয়ে খারাপ হয়ে গেছেন। খারাপ তো খারাপ, খারাপের চেয়েও খারাপ।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.