আয়কর মেলার প্রথম দিন ২১৮ কোটি ৪২ লাখ টাকা সংগ্রহ

644

করদাতা-সেবাগ্রহীতাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে আয়কর মেলার প্রথম দিন শেষ হয়েছে। এদিন আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ২১৮ কোটি ৪২ লাখ ৭৭ হাজার ৪৮ টাকা। এনবিআর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। মঙ্গলবার (১৩ নভেম্বর) শুরু হয় সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা ২০১৮। প্রথম দিন রাজধানী ঢাকাসহ দেশের আট বিভাগ, চার জেলা এবং সাতটি উপজেলাসহ মোট ১৯টি স্পটে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

‘উন্নয়ন ও উত্তরণ, আয়করের অর্জন’— এ স্লোগান সামনে রেখে এ বছর আয়কর মেলার প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে: ‘আয়কর প্রবৃদ্ধির মাধ্যমে সামাজিক ন্যায়বিচার ও ধারাবাহিক উন্নয়ন নিশ্চিতকরণ।’

এনবিআর থেকে বলা হয়েছে, এ বছর মেলার প্রথম দিন সেবা গ্রহণ করেছেন এক লাখ ১৩ হাজার ৬৯৯ জন। যা গত বছরের চেয়ে ৩৪ হাজার ৫৮৭ জন বেশি। প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪৩ দশমিক ৭২ শতাংশ। এবছর রিটার্ন দাখিল করেছেন ৪৬ হাজার ৪০১ জন। যা গত বছরের চেয়ে ১৫ হাজার ৩৬০ জন বেশি। রিটার্ন দাখিলে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৪৯ দশমিক ৪৮ শতাংশ। গত বছর মেলার প্রথম দিন সেবা গ্রহণ করেছিলেন ৭৯ হাজার ১১২ জন এবং রিটার্ন দাখিল করেছিলেন ৩১ হাজার ৪১ জন।
c8f79162cc3acb4572865828f998d27f-5beae64085c18

এনবিআর জানিয়েছে, আয়করের মতো বিষয় নিয়ে মেলার আয়োজন করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কেবল চমক সৃষ্টিই করেনি, বরং জনসেবার ক্ষেত্রে নতুন উদাহরণ তৈরি করেছে। ২০১০ সাল থেকে শুরু হওয়া আয়কর মেলার পরিধি এবং মেলার মাধ্যমে আয়কর বিভাগের সেবার পরিসর উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০১৮ সালে দেশব্যাপী সবচেয়ে বেশি ভেন্যুতে আয়কর মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। ১৩ থেকে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত ঢাকাসহ সব বিভাগীয় শহরে সাত দিন, ৫৬টি জেলা শহরে চার দিন,৩২টি উপজেলায় দুই দিন এবং ৭০টি উপজেলায় দিনব্যাপী আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
এনবিআর জানায়, প্রথম দিন মেলা সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলে। প্রথম দিন আয়কর সংগ্রহ হয়েছে ২১৮ কোটি ৪২ লাখ ৭৭ হাজার ৪৮ টাকা। মেলার পরিধি গত বছরের মেলার চেয়ে কয়েক গুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইএন গ্রহণ (নতুন ও পুরাতন), ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা রয়েছে। মেলায় আসা মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য রয়েছে আলাদা বুথ। মেলায় করদাতাদের যাতায়াতের সুবিধার জন্য রাজধানীর টিএসসি, রামপুরা, বেইলি রোড, মতিঝিল, মিরপুর ও উত্তরা থেকে ১৫টি শাটল বাস রয়েছে। করদাতাদের সুবিধার জন্য ৪৩টি আয়কর রিটার্ন বুথ, ৩১টি হেল্প ডেস্ক, ব্যাংক বুথ (সোনালী ব্যাংক ১৩টি, জনতা ব্যাংক পাঁচটি এবং বেসিক ব্যাংক তিনটি), ই-পেমেন্টের জন্য তিনটি,ই-ফাইলিংয়ের জন্য দুটি বুথ রয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.