আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, মুজিবনগর দিবসের সভা পণ্ড

151

নিউজডেস্কঃ দুপক্ষের সংঘর্ষ এবং নিউইয়র্ক পুলিশের নির্দেশে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভা পণ্ড হয়ে গেছে। স্থানীয় সময় গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের উত্তেজিত বিবদমান গ্রুপগুলো আলোচনা সভার নামে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে বাংলাদেশি–অধ্যুষিত জ্যাকসন হাইটস এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে নিউইয়র্ক পুলিশের বিপুলসংখ্যক সদস্য অন্তত ২০টি গাড়ি নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। আলোচনা সভায় মেজবান রেস্তোরাঁ থেকে নেতা-কর্মীদের একে একে বের করে দেয় পুলিশ।

7c7eb3c6fd8fb151bc27c1f86a1813e3-58f5a9c0d40fe
প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিরা জানান, মেজবান রেস্তোরাঁয় পূর্বনির্ধারিত মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভা শুরু করেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। সভা চলাকালে সিদ্দিকুর রহমান কর্তৃক বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান তাঁর সমর্থকদের নিয়ে ভেতরে ঢোকেন। এ সময় তিনি দাঁড়িয়ে বলেন, ‘আমি বিনয়ের সঙ্গে জানতে চাই, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভা অসাংগঠনিকভাবে হচ্ছে, আমাকে কেন জানানো হয় নাই?’ এ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে সিদ্দিকুর রহমান চিৎকার করে বলেন, ‘সাজ্জাদ, আপনাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।’ উত্তরে সাজ্জাদুর রহমান বলতে থাকেন, ‘জয় মামার চিঠি দিয়ে যে তিনজনকে আপনি বহিষ্কারের কথা বলছেন, তার দুজনকে নিয়ে আপনি সভা করেছেন। আপনি বলেছেন, আমার বিষয়ে আপনি দেখবেন। আপনি এভাবে অসাংগঠনিক কাজ করতে পারেন না।’
এ সময় উত্তেজিত সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ আমার কথায় চলবে, আপনি সভা থেকে বেরিয়ে যান।’ সঙ্গে সঙ্গে দুপক্ষের মধ্য গালাগালি, চেয়ার ছোড়াছুড়ি শুরু হয়। পরিস্থিতি বেকায়দা দেখে সিদ্দিকুর রহমান দ্রুত সভাস্থল থেকে বেরিয়ে যান। এ সময় সভাস্থল সাজ্জাদুর রহমান গ্রুপের নিয়ন্ত্রণে চলে যায় এবং হট্টগোল চলতে থাকে।
সভাস্থল থেকে বের হওয়ার পরপরই সিদ্দিকুর রহমান পুলিশে ডাকেন। প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিরা ৯১১ কল দিলে চারদিকে থেকে সাইরেন বাজিয়ে অন্তত ২০ গাড়ি পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। এ সময় পুরো এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। মেজবান রেস্তোরাঁর আশপাশের সড়ক মুহূর্তের মধ্যে খালি হয়ে যায়। সিদ্দিকুর রহমান দলের দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী ও আইন সম্পাদক শাহ বখতিয়ারকে দেখিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করার জন্য পুলিশের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এ সময় অন্য পক্ষ থেকে পুলিশকে পাল্টা বক্তব্য প্রদান করলে পুলিশ ঘটনাস্থল ত্যাগে সবাইকে নির্দেশ দেয়। আধা ঘণ্টা পর পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়ে এলে সিদ্দিকুর রহমান আবার আলোচনা সভা শুরু করেন এবং সাজ্জাদ গ্রুপের বিরুদ্ধে বিষোদ্‌গার ও দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। এ অবস্থায় যুবলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে আবার সংঘর্ষ শুরু হলে তারেক ও সবুজ নামে দুজন যুবলীগ সংগঠক আহত হন। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত জ্যাকসন হাইটসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের জনসংযোগ–বিষয়ক সম্পাদক কাজী কয়েস প্রথম আলোকে বলেন, ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবসের আলোচনা সভা পণ্ড হওয়ার ঘটনা খুবই দুঃখজনক। যে নেতৃত্বের ব্যর্থতার কারণে এ লজ্জাজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে, তার দায়দায়িত্ব তাদেরই নিতে হবে।
দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান এবং যুগ্ম সাধারণ নিজাম চৌধুরীর মধ্যে ব্যবসায়িক সম্পর্ক থাকা না থাকার সঙ্গে এখানকার অনেক সাংগঠনিক কাজ নির্ভর করে। এ চক্রের হাতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ বারবার লজ্জাজনক অবস্থার মধ্যে পড়েছে।
সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রহিম বাদশা বলেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা জামায়াত বিএনপি সমর্থকেরা নানাভাবে দলকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছে। কার্যকরী সদস্য হিন্দাল কাদির বাপ্পা বলেন, সিদ্দিকুর রহমান ও নিজাম চৌধুরী চক্রের হাতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ জিম্মি হয়ে পড়েছে। তাঁদের ব্যবসায়িক সম্পর্কটাই এখানে প্রাধান্য পাচ্ছে।
প্রথম আলোর পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের সঙ্গে বেশ কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও মুঠোফোনে তাঁকে পাওয়া যায়নি।(সুত্র প্রথম আলো)

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.