যে দেশে বেকারদের ভাতা চাকুরিজীবীর সমান

211

4384_1এই প্রস্তাবকে ‘মুড়ি, মিছরি একদর’ বলবেন কিনা, তা পাঠকদের বিচার্য। খবরটি হল, সুইত্‍‌জারল্যান্ডে প্রত্যেক বাসিন্দাই একই পরিমাণ অর্থ উপার্জন করবেন। অর্থাত্‍‌, যিনি চাকরি করছেন, তিনিও যা বেতন পাবেন, বেকার ভাতা বাবদও সরকার সেই একই পরিমাণ অর্থ বেকারদের দেবে। যদি সরকারের এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়ে যায়, তাহলে সুইত্‍‌জারল্যান্ডই বিশ্বের প্রথম দেশ হবে, যেখানে চাকরিজীবী ও বেকার– সকলের সমান আয় হবে।

বেকার জীবন মানেই পরের ভরসায় দিন গুজরানের ইতি হতে চলেছে সুইত্‍‌জারল্যান্ডের যুবসম্প্রদায়ের। সে দেশের বুদ্ধিজীবী মহলের একাংশ সরকারকে প্রস্তাব দিয়েছে, প্রত্যেক নাগরিকের আয় সুনিশ্চিত করা হোক। এবং একই আয় করে দেওয়া হোক।

প্রস্তাবে বলা হয়েছে, প্রত্যেক বাসিন্দার আয় ১ হাজার ৭০০ ইউরো করে দেওয়া হবে (ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১ লক্ষ ৬৬ হাজার ৯৮১ টাকা)। যে ব্যক্তি চাকরি করবেন, তিনিও এই টাকাই বেতন পাবেন। যিনি বেকার, তিনিও ওই একই অর্থ পাবেন সরকারের কাছ থেকে ভাতা বাবদ। এখানেই শেষ নয়। বাচ্চাদের জন্যও ৪৩০ ইউরো করে ভাতার চালু করার প্রস্তাব বিবেচনা করছে সুইস সরকার।

সম্প্রতি সুইত্‍‌জারল্যান্ডের বুদ্ধিজীবী মহল একটি সমীক্ষা চালিয়ে দেখেন, দেশের একটা বড় অংশের মানুষের পর্যাপ্ত রোজগারের উপায় থাকলেও, তাঁরা কাজ করতে চাইছেন। মাত্র এক তৃতীয়াংশ মানুষ বাড়িতে বসে থাকার পক্ষপাতি। তাই সরকার যদি ভাতা সুনিশ্চিতও করে দেয়, তাহলেও কেউ বাড়িতে বসে থাকতে চাইবে না। কাজ করবে।

প্রস্তাবটি যদি গৃহীত হয়, তাহলে সুইস সরকারের কোষাগার থেকে বছরে ১৪৩ বিলিয়ন ইউরো খরচ হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.